শুক্রবার | ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং |

স্কুলছাত্রীর খাতায় পাতা না থাকায় শিক্ষকের কাণ্ড!

আহত স্কুলছাত্রী সাথিয়া নৌশী লুবদি

নিউজ ডেস্ক,বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮:
ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে পিটিয়ে অজ্ঞান করার অভিযোগ উঠেছে মাহমুদুর রহমান মকিম নামে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। বুধবার সকালে খায়রুল্লাহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় সহপাঠীদের চিৎকারে বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষকরা শ্রেণিকক্ষে উপস্থিত হয়ে অজ্ঞান অবস্থায় ছাত্রী সাথিয়া নৌশী লুবদিকে উদ্ধার করে গফরগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

সূত্র জানায়, গফরগাঁও পৌরশহরের খায়রুল্লাহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সকাল ৯টার দিকে নবম শ্রেণির ছাত্রী সাথিয়া নৌশী লুবদি ২০-২৫ জন সহপাঠীর সঙ্গে কোচিং করছিল। এ সময় লুবদিকে একটি কম্পোজিশন লিখতে বলেন বিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক মাহমুদুর রহমান মকিম।

এ সময় লুবদি তার খাতার পাতা শেষ হয়ে গেছে বলে শিক্ষককে জানায়। এ কথা বলার পর শিক্ষক মাহমুদুর রহমান ক্ষিপ্ত হয়ে কোচিং ক্লাসেই তাকে স্টিলের স্কেল দিয়ে বেধড়ক পেটানো শুরু করেন। একপর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে পড়ে লুবদি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিদ্যালয়ের একাধিক ছাত্রী অভিযোগ করে বলে, শিক্ষক মাহমুদুর রহমান মকিম প্রতিদিন ক্লাসে আমাদের এভাবে পেটান। স্যার আমাদেরকে মাঝেমধ্যে বিভিন্ন ভঙ্গিতে খারাপ কথাবার্তাও বলেন। আহত ছাত্রীর মা আয়েশা আক্তার জানান, মেয়েকে অজ্ঞান অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে অভিযুক্ত শিক্ষক মাহমুদুর রহমান মকিম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, খাতায় পাতা না থাকায় মেয়েটিকে আমি ধমক দিয়েছি। বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক একেএম মফিজুল হক জানান, ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে মেয়েটিকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ডা. শামীম রহমান বলেন, এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

fb-share-icon35
fb-share-icon20

Enjoy this blog? Please spread the word :)