সোমবার | ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং |

তুরাগে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ভাবিকে ধর্ষন! টাকা পয়সা আত্মসাধ

রাসেল খান,
তুরাগে উলুদাহা এলাকায় ভাবিকে বিয়ে করার প্রলোভন দেখিয়ে তিন বছর যাবৎ ধর্ষণ এবং টাকা পয়সা হাতি নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অভিযোক্ত দেবড়ের নাম রাজীব (২৮) তিনি উলুদাহা এলাকার ব্যবসায়ী নুর আলমের ছোট ছেলে।
জানা যায়, ২০০৮ সালে সৌদি প্রবাসী মনির হোসেন পারিবারিক ভাবে ভুক্তভোগী (২৫) কে বিয়ে করেন বিয়ের পর সালমান এবং আরমান নামের দুইটি ছেলে সন্তান হয়। ২০১৩ সালে স্বামী মনির হোসেন সৌদিতে চলে যান ব্যবসা করতে সেখানে থাকা অবস্থায় স্ত্রী ভুক্তভোগির নামে ৯০ লাখ টাকা জমা রাখে ২০১৫ সালের অক্টোবর মাসে সৌদিতে সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যায় মনির হোসেন, মারা যাওয়ার পর ছোট ভাই রাজীব (২৮) বড় ভাইয়ের জমানো টাকার লোভে ভাবি সুরাইয়া আক্তারের সাথে প্রেমের সম্পর্ক করে এবং তিন বছর যাবৎ বিয়ে প্রলোভন দেখিয়ে অবৈধ মিলামেশা করে করে ভাবি নিকট হতে সব টাকা পয়সা হাতিয়ে নেয়।
জানাযায়, সৌদিতে মনির হোসেন ব্যবসা করা অবস্থায় ৯০ লাক টাকা তার স্ত্রীকে নমিনি করে জমা রাখে। আর সেই টাকার লোভে নিহত মনিরের বাবা মা টাকা হাতিয়ে নেয়ার জন্য পরিবারের ছোট ছেলে রাজীবের সাথে প্রেমের সম্পর্ক করায় এবং মেলামেশা করার সুযোগ করে দেয়।
সুরাইয়া আক্তার হাসী জানান, স্বামী মারা যাওয়ার পর আমার ছোট দেবর রাজীব (২৮) তিন বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক করে বিয়ে করবে বলে অবৈধ মেলামেশা করার এক পর্যায়ে আমি চার মাসের গর্ভবতী হলে আমাকে বাচ্চা নষ্ট করার কথা বলে বিয়ে করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু অভিযুক্ত রাজীর এখন বিয়ে না করে নানা টালবাহানা শুরু করেন। বাধ্য হয়ে ঘটনাটি গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানানো হলে মুরব্বিরা বিয়ে করানোর জন্য রাজীবের পরিবারকে চাপ দিলে উলটো বড় ছেলের বউ এর নিকট ২০ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে। পরে অভিযোক্ত রাজীব গত বৃহস্পতিবার উলটো তুরাগ থানায় ভুক্তভোগিকে অভিযুক্ত করে অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনায় সোমবার সকালে তুরাগ থানায় উভয় পক্ষের বসার কথা রয়েছে।

fb-share-icon35
fb-share-icon20

Enjoy this blog? Please spread the word :)