1. shahinit.mail@gmail.com : dhaka24 :
  2. arifturag@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
  3. mahbub@gmail.com : mahbub1 :
  4. sasujan83@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
  5. sasujan82@gamil.com : Dhaka 24 : Dhaka 24
শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ১২:৪৫ অপরাহ্ন

উত্তরায় যথাযোগ্য পরিবেশে মাতৃভাষা দিবস পালিত

Reporter Name
  • প্রকাশিত | বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

রাসেল খান,
উত্তরায় যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলাকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেবার দাবীতে আন্দোলনের সময় ঢাকায় বেশ কয়েকজন বাঙালী পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারান। তাঁদের স্মরণে গড়ে তোলা উত্তরার ছোট বড় শহীদ মিনারে ২০ শে ফেব্রুয়ারী দিবাগত রাত ১২.০১ মিনিট থেকেই ফুলে ফুলে ঢেকে দেয়া শহীদ মিনার প্রাঙ্গন। একুশের প্রথম প্রহরে উত্তরা ৬ নাম্বার সেক্টার আবহাওয়া কোয়াটারের সামনে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খান , পরে শ্রদ্ধা জানান ১ নং ওয়ার্ডের সভাপতি সালাউদ্দিন আহাম্মেদ খোকা, উত্তরা পূর্ব থানা কৃষকলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক রাসেল মন্ডল, সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম ও নয়ন। এ সময় একের পর এক ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় উত্তরা ৬ নাম্বর সেক্টরের বাসিন্দারা, পরে ফুলের শুভেচ্ছা যানায় এস এ পরিবহনের উত্তরা ব্রাঞ্চ অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারী গন সহ উত্তরা ভিবিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ।
ভাষা আন্দোলনে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে একুশে ফেব্রুয়ারীর প্রথম প্রহরেও যেমন ছিলো মানুষের মিছিল, একই ভাবে সকালেও ছিলো মানুষের ঢল। ভিবিন্ন স্কুল কলেজেও এই দিবসটি পালন করেন একি সাথে।
শ্রদ্ধা জানানোর জন্য বয়স যে মুল ব্যাপার নয় তারই প্রমাণ শহিদ মিনার এলাকায় অসংখ্য শিশুর উপস্থিতি চোখে পড়ার মত। অনেকে যেমন পিতা মাতার কোলে চড়ে তারা এসেছে, তেমনি এসেছে স্কুলের শিশুরাও।
স্কুলের পোষাক পরেই উত্তরা হাই স্কুলে ভোর ভেলায় শহিদ মিনারে এসেছে রিস্তা আক্তার। জানালেন তার এখানে আসতে পেরে খুবই ভালো লাগছে তার। রিস্তার মা শাহানাজ আক্তার বলেন বাচ্চা সাথে করে নিয়ে আসার মধ্যে একটি চেতনা কাজ করে এমনটা বললেন শাহানাজ আক্তার।
তিনি মনে করেন এতে করে একুশের চেতনা ছড়িয়ে যাবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। একুশের শ্রদ্ধা জানাতে বিভিন্ন বয়সের মানুষ যেমন এসেছেন, তেমনি এসেছেন শিশুরাও।
উত্তরা পূর্ব থানা কৃষকলীগের যুগ্ন সাধারন রাসেল মন্ডল বলেছেন, মুলত একুশের এই বিশাল উদযাপনে শরিক হতেই তিনি এসেছেন। তিনি আরো বলছিলেন যে ১৯৫২ সালের এদিনে যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় গুলিতে নিহত হয়েছিলেন, দিনটি তাদের স্মরণ করার জন্যই শুধু নয় ঐ ঘটনাকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের শুরুও বলা যায় বলে তিনি মনে করেন।

আরো সংবাদ পড়ুন
© All rights reserved &copy | 2016 dhaka24.net
Theme Customized BY WooHostBD