1. shahinit.mail@gmail.com : dhaka24 : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
  2. arifturag@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
  3. sasujan83@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
  4. mdjihadcfm@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৪৮ অপরাহ্ন

মোবাইলে প্রেম, দুই বোনকে ধর্ষণ করল তিন বন্ধু

ঢাকা টোয়েন্টিফোর
  • প্রকাশিত | বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০১৯

নিউজ ডেস্ক | বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯:
মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে ক্ষুদ্র নৃ–গোষ্ঠী এক স্কুলছাত্রী ও তার ছোট বোনকে ধর্ষণ করেছে কথিত প্রেমিক এবং তার তিন বন্ধু। এ ঘটনায় বাড়িতে ফিরে লজ্জা এবং ক্ষোভে আত্মহত্যা করেছে বড় বোন। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে কথিত প্রেমিক রতনসহ তিনজনকে আসামি করে ধর্ষণ এবং আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগে মিঠাপুকুর থানায় একটি মামলা হয়েছে। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করেছে।

ওই ছাত্রীর সহপাঠী ও অন্য ছাত্রীরা জানায়, এবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে ওই ক্ষুদ্র নৃ–গোষ্ঠী মেয়েটি। রংপুর শহরের মাহিগঞ্জ এলাকার ঢোলভাঙা গ্রামের রতন মিনজির সঙ্গে প্রেমের সর্ম্পক ছিল ওই ছাত্রীর। ১৮ এপ্রিল মোবাইল ফোনে দেখা করতে ডাকে রতন। ওই দিন বিকেলে চাচাতো বোনকে সঙ্গে নিয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে বিকেলে বাড়ি থেকে বের হয় সে। এরপর সরাসরি প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করতে ঢোলভাঙা গ্রামে যায়। সেখানে রতন ও তার তিন বন্ধু মিলে একটি নির্জনস্থানে নিয়ে দুই বোনকে ধর্ষণ করে। পরদিন শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে তারা বাড়ি ফেরে। তখন তারা অসুস্থ থাকলেও ঘটনাটি কাউকে জানায়নি। এরপর লজ্জা এবং ক্ষোভে বিকেল পাঁচটার দিকে শয়ন ঘরে আত্মহত্যা করে বড়বোন।

ছোটবোন বলেন, অনেক দিন ধরে রতন মোবাইল ফোনে তার দিদিকে বিরক্ত করত, প্রেমের প্রস্তাব দিত। কিন্তু দিদি তাতে রাজি হয়নি। পরে নানা কৌশলে প্রেমের ফাঁদে পড়ে যায়। এরপর থেকে তারা মোবাইলে এসএমএসে নিয়মিত কথা বলত।

ধর্ষণের শিকার অপর স্কুলছাত্রীর মাসহ প্রতিবেশীরা বলেন, ধর্ষক পক্ষ হুমকি দিচ্ছে- সে তো আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনায় আইনের আশ্রয় নিলে ধর্ষণের শিকার অন্যজনকে মেরে ফেলা হবে। এই ভয়ে এতদিন কেউ মুখ খোলেনি, ধর্ষণের মামলাও করেনি।

এদিকে ঘটনার পাঁচ দিন পর নিহত মেয়েটির বোন বাদী হয়ে কথিত প্রেমিক রতনসহ তিনজনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা করেন।

ঘটনার পাঁচ দিন মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে মিঠাপুকুর থানার ওসি জাফর আলী বিশ্বাস বলেন, ক্ষুদ্র নৃ–গোষ্ঠী স্কুলছাত্রী আত্মহত্যার পর ঘটনাস্থলে গিয়ে সবার সঙ্গে কথা বলেছি। ওই সময় কেউ অভিযোগ করেনি। এরপরও মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ধর্ষণের বিষয়টি জানার পর তার স্বজনকে ডেকে এনে মামলা নেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ধর্ষক রতনের বাবা বুধুয়া মিনজিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে জোর চেষ্টা চলছে।
খবর-মানবকণ্ঠ

fb-share-icon35
56

আরো সংবাদ পড়ুন




© All rights reserved &copy | 2016 dhaka24.net
Theme Customized BY WooHostBD