শনিবার | ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং |

জি কে শামীম যুবলীগের কেউ নয়: যুবলীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক | শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ :
অস্ত্র, বিপুল পরিমাণ নগদ টাকা ও ১৬৫ কোটি ৮০ লাখ টাকার এফডিআর সহ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) কাছে আটক হওয়া জি কে শামীম যুবলীগের কেউ নয় বলে দাবি করেছে যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী।

ওমর ফারুক চৌধুরীর বরাত দিয়ে ব্রেকিংনিউজকে এ তথ্য জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজু।

তিনি বলেন, ‘জি কে শামীম যুবলীগের কেউ নয়, সে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি’।

এর আগে, শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টার দিকে রাজধানীর নিকেতনে জি কে শামীমের ব্যবসায়িক কার্যালয় জি কে বিল্ডার্স থেকে শামীমকে আটক করা হয়।

এর আগে বেলা ১২টা থেকে তার কার্যালয়টি ঘিরে রাখে র‌্যাব সদস্যরা। এর পর ভেতরে অভিযান চালায় তারা।

জি কে শামীমকে আটকের পরপরই যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক বলে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়।

অভিযানের পর অবৈধ অস্ত্রসহ শামীমকে আটক করে র‌্যাব। এ সময় জিকে বিল্ডার্স থেকে বিপুল পরিমাণে টাকা ও মাদক জব্দ করা হয় বলে জানিয়েছে র‌্যাবের দায়িত্বশীল একটি সূত্র।

র‌্যাবের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, অভিযানে শামীমের কার্যালয় থেকে আগ্নেয়াস্ত্রসহ নগদ ১০ কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। এ ছাড়া ১৬৫ কোটি ৮০ লাখ টাকার এফডিআর জব্দ করা হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার ভোর সাড়ে ৬টার দিকে শামীমের ৭ দেহরক্ষীকে নিজেদের হেফাজতে নেয় র‌্যাব।

জিকে বিল্ডার্সের কর্মচারী দিদারুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৬টার দিকে রাজধানীর নিকেতনে শামীমের ব্যবসায়িক কার্যালয় জিকে বিল্ডার্সে র‌্যাবের একটি দল এসে তার ৭ বডিগার্ডকে তুলে নিয়ে যায়।

ভোরবেলা সিটি কর্পোরেশনের লোক বলে র‌্যাব শামীমের কার্যালয়ে ঢোকে বলে জানার দিদারুল ইসলাম। পরে র‌্যাব পরিচয়ে তাদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।

র‌্যাব-১ সূত্রে জানা গেছে, শামীমের দেহরক্ষীদের থেকে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এসব অস্ত্র লাইসেন্সকৃত কিনা তা যাচাই করা হবে।

এর আগে অবৈধ জুয়া ও ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে র‌্যাবের হাতে আটক হয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ মহানগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া। অস্ত্র ও মাদকের পৃথক দুই মামলায় তাকে সাত দিনের রিমান্ডেও পেয়েছে পুলিশ।

সম্প্রতি ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কয়েকজন নেতার বিষয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার পরই ছাত্রলীগের পদ হারান শোভন-রাব্বানী। এর পর আটক হন খালেদ ও আজ আটক হলেন শামীম।

fb-share-icon35
fb-share-icon20

Enjoy this blog? Please spread the word :)