1. shahinit.mail@gmail.com : dhaka24 :
  2. arifturag@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
  3. sasujan83@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৩:১৫ অপরাহ্ন

রায়ে সন্তুষ্ট নিহত পুলিশ কমিশনার রবিউলের মা

Reporter Name
  • প্রকাশিত | বুধবার, ২৭ নভেম্বর, ২০১৯

গুলশানের হোলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় দেশের সবচেয়ে ভয়াবহ জঙ্গি হামলা মামলার রায়ে আট আসামির সাতজনকে ফাঁসির দণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ঘটনার সময় নিহত গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার রবিউল করিমের মা করিমুন নেছা।

বুধবার (২৭ নভেম্বর) দুপুর সোয়া ১২টায় দিকে ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী, রাকিবুল হাসান রিগান, রাশেদুল ইসলাম ওরফে র্যাশ, সোহেল মাহফুজ, হাদিসুর রহমান সাগর, শরিফুল ইসলাম ও মামুনুর রশিদ। মামলার অপর আসামি মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজানের বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত না হওয়ায় তিনি এই মামলায় খালাস পেয়েছেন।

রায় ঘোষণার সময় জেলা প্রতিনিধি নিহত রবিউল করিমের মানিকগঞ্জের বাসভবনে প্রতিক্রিয়া জানতে যান। রায় ঘোষণার খবর শুনে তার করিমুন নেছা কান্নায় ভেঙে পড়েন।

আবেগআপ্লুত কমিমুন নেছা বলেন, ‘আমি তো আর আমার সন্তানকে ফিরে পাবো না। দীর্ঘ তিনটি বছর এই দিনের অপেক্ষায় ছিলাম। আজকে যে রায় হলো এতে আমি সন্তুষ্ট।’

এ রায় দ্রুত কার্যকরের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এই সন্তানই ছিল আমার একমাত্র মাথার ছায়া। তাকে হত্যা করার পর আমরা অসহায় হয়ে পড়েছি।’

বিপদের সময় রবিউলের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ধন্যবাদ জানান করিমুন নেছা। তিনি বলেন, ‘আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী ও পুলিশ প্রশাসনকে আমি অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই। কারণ আমাদের বিপদের সময় তারা আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন।’

২০১৬ সালের ১ জুলাই প্রথমবার কোনও সংগঠিত জঙ্গি হামলায় স্তম্ভিত হয়ে পড়েছিল গোটা দেশ। হতবাক হয়ে পড়েছিল গোটা বিশ্ব। দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমগুলো লোকহর্ষক সেই হামলার ঘটনা দিনের পর দিন খবরের শিরোনাম করেছিল। বহুল আলোচিত নারকীয় সেই হলি আর্টিজান হামলার তিন বছর পর আজ রায় ঘোষণা হলো। চার্জশিটভুক্ত জীবিত ৮ আসামির মধ্যে ৭ জনের ফাঁসির দণ্ডদেশ দিয়েছেন আদালত।

হামলায় সরাসরি জড়িত নিহত ৫ জঙ্গিসহ এই হামলা মামলার মোট ২১ জনকে আসামি করা হয়েছিল। তাদের মধ্যে মামলার বিচারকাজ চলাকালে ও পরবর্তীতে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে ১৩ জন মারা যান। জীবিত ৮ জনকে আসামি করে ২০১৮ সালের ২৬ নভেম্বর আদালতে চার্জশিট দেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। এর পর গত এক বছর ধরে চার্জশিটভুক্ত ২১১ জন সাক্ষীর মধ্যে ১১৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করে ঢাকার সন্ত্রাস বিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল।

২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ গুলিশানের হলি আর্টিজানে ‘আল্লাহু আকবার’ ধ্বনি দিয়ে হামলায় সরাসরি অংশ নেয়া ৫ জঙ্গি নিবরাজ ইসলাম, খায়রুল ইসলাম ওরফে পায়েল, মীর সামেহ মোবাশ্বের, রোহান ইবনে ইমতিয়াজ ও শফিকুল ইসলাম ওরফে উজ্জ্বল হামলার পরদিন ২ জুলাই সকালে সেনাবাহিনীর কমান্ডো অভিযানে নিহত হন।

আরো সংবাদ পড়ুন
© All rights reserved &copy | 2016 dhaka24.net
Theme Customized BY WooHostBD