রবিবার | ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং |

গণহত্যার শুনানি: হেগের পথে সু চি, যাচ্ছে বাংলাদেশও

রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর চালানো গণহত্যা-গণধর্ষণের দায়ে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালতে (আইসিজে) মিয়ানমারের বিরুদ্ধে করা মামলায় শুনানিতে অংশ নিতে দি হেগের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন অং সাং সু চি।

গাম্বিয়ার করা মামলার শুনানিতে মিয়ানমারের পক্ষে নিজেই দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে রবিবার (৮ ডিসেম্বর) নেদারল্যান্ডসের দি হেগের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন দেশটির স্টেট কনস্যুলার।

এদিকে শুনানিতে পর্যবেক্ষণ করতে হেগে আইসিজে যাচ্ছে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল। রবিবার (৮ ডিসেম্বর) রাতে প্রতিনিধি দল এ উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবে বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়।

মঙ্গলবার (১০ডিসেম্বর) থেকে আইসিজেতে শুরু হতে যাওয়া শুনানিতে বাংলাদেশের একটি ২০ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নেবেন। এছাড়া কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়া তিনজন রোহিঙ্গা শুনানিতে উপস্থিত থাকবেন বলে মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। তবে তাদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

গত ১১ নভেম্বর যুক্তরাজ্যের গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গণহত্যা, ধর্ষণ ও রোহিঙ্গা মুসলিম সম্প্রদায়কে ধ্বংস করেছে। এ বিষয়ে অভিযোগ করে গাম্বিয়া ৪৬ পৃষ্ঠার একটি আবেদন আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে জমা দিয়েছে।

গাম্বিয়া এবং মিয়ানমার উভয়ই ১৯৪৮ গণহত্যা কনভেনশনের স্বাক্ষরকারী দেশ। তাই বিধি অনুযায়ী গণহত্যার অভিযোগে গাম্বিয়া মিয়ানমারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারে।

গাম্বিয়ার বিচার মন্ত্রী আন্তর্জাতিক আদালতের সদর দফতর হেগে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘ আমাদের উদ্দেশ্য হলো মিয়ানমার তার নিজের লোকদের বিরুদ্ধে তার ক্রিয়াকলাপের জন্য দায়বদ্ধ করা। আমাদের প্রজন্মের জন্য এটি লজ্জার বিষয় যে আমাদের চোখের সামনে গণহত্যা সংগঠিত হওয়ার পরও আমরা কিছুই করছি না।’

আন্তর্জাতিক ইসলামী সংস্থা অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কে- অপারেশন (ওআইসি) এর পক্ষ থেকে মুসলিম দেশ গাম্বিয়া এই মামলাটি দায়ের করেছে। মামলার সমস্ত ব্যয়ভার বহন করবে ওআইসি।

fb-share-icon35
fb-share-icon20

Enjoy this blog? Please spread the word :)