শুক্রবার | ১৪ই আগস্ট, ২০২০ ইং |

‘অচিনপুরের রাজকুমারী নেই যে তার কেউ’

বিনোদন ডেস্ক: লাইফ সাপোর্টে রাখার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে দুনিয়ার মায়া ত্যাগ করে চলে গেলেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর। আলম খানের সুরে ‘মেইল ট্রেন’ চলচ্চিত্রে ‘অচিনপুরের রাজকুমারী নেই যে তার কেউ’ গানের মধ্য দিয়ে এন্ড্রু কিশোরের চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক–যাত্রা শুরু হয়। দীর্ঘ সংগীত জীবনে ভক্তকুলকে চোখের জলে ভাসিয়ে বিদায় নিলেন এ গুণী শিল্পী।

সোমবার (৬ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিটে তিনি মারা যান বলে জানান এন্ড্রু কিশোরের বোন জামাই দুলাভাই ডা. প্যাট্রিক বিপুল বিশ্বাস। এন্ড্রু কিশোর সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে রাজশাহীতে এসে মহানগরীর মহিষবাতান এলাকায় তার বোন ডা. শিখা বিশ্বাস ও দুলাভাই ডা. প্যাট্রিক বিপুলের বাসায় ছিলেন।

প্যাট্রিক বিশ্বাস জানান, দুপুরে এন্ড্রু কিশোরের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে বাড়ির ক্লিনিকেই লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে। সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

এর আগে রবিবার বিকেলে এন্ড্র কিশোরের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ে। তার স্বজনরা জানিয়েছেন, তার শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন। তিনি কারো সাথেই কোনো কথা বলতে পারছেন না। তার শারীরিক সুস্থতার জন্য সবাইকে দোয়া করার আহ্বান জানিয়েছেন তার স্বজনরা।

এদিকে, রবিবার রাত ১০টার দিকে এন্ড্রু কিশোরের ফেসবুক পেজ থেকে তার স্ত্রী একটি স্ট্যাটাস দেন। সেখানে তিনি এন্ড্রু কিশোরের শারীরিক অবস্থার বিবরণ জানিয়ে লেখেন, ‘এখন কিশোর কোনো কথা বলে না। চুপচাপ চোখ বন্ধ করে শুয়ে থাকে। আমি বলি কি ভাব, বলে কিছু না, পুরানো কথা মনে পড়ে আর ঈশ্বর কে বলি আমাকে তাড়াতাড়ি নিয়ে যাও, বেশি কষ্ট দিয়ো না।’

তিনি লিখেছেন, ক্যানসার এর লাস্ট স্টেজ খুব যন্ত্রনাদায়ক ও কষ্টের হয়। এন্ড্রু কিশোরের জন্য সবাই প্রাণ খুলে দোয়া করবেন, যেন কম কষ্ট পায় এবং একটু শান্তিতে পৃথিবীর মায়া ছেড়ে যেতে পারে। তিনি আরো লিখেন, আমার মনে হল, কিশোর শুধু আমার বা আমাদের সন্তানের বা আমাদের পরিবারের নয় বরং দেশের মানুষের একটা অংশ বা সম্পদ। তাই এই কথাগুলো দেশের ভক্ত স্রোতাদের বলা বা জানানো আমার দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।

তিনি লিখেছেন, এটাই শেষ পোস্ট, এর পর আর কিছু বলা বা লেখার মত আমার মানসিক অবস্থা থাকবে না। এখনও মাঝে মাঝে দুঃস্বপ্ন মনে হয়, কিশোর থাকবে না অথচ আমি থাকবো, মেনে নিতে পারছি না। এই অসময়ে, সবাই সাবধানে থাকবেন, নিজের প্রতি যত্ম নিবেন, সুস্থ থাকবেন, ভাল থাকবেন আর এন্ড্রু কিশোরের এর প্রতি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টি রাখবেন ও প্রাণ খুলে দোয়া করবেন।

রাজশাহীর ওস্তাদ আব্দুল আজিজ স্মৃতি সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক ও এন্ড্রু কিশোরের পারিবারিক বন্ধু শফিকুল আলম বাবু জানান, তিনি ভালোও নেই আবার মন্দও নেই। তিনি উভয় অবস্থার মাঝামাঝি পর্যায়ে রয়েছেন। তবে তার অবস্থা সংকটাপন্ন বলা যায়। সবাই তার জন্য দোয়া করবেন।

ব্লাড ক্যানসার নিয়ে গত বছরের অক্টোবর থেকে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পি এন্ড্র কিশোর। হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পাওয়ার পর ১১ জুন রাতে বিশেষ ফ্লাইটে ঢাকায় আসেন তিনি। পরের দিন তিনি ঢাকা থেকে রাজশাহী চলে আসেন। এর পর থেকে তিনি তার বোন ডা. শিখার বাড়িতে রয়েছেন।

এন্ড্রু কিশোরের জন্ম রাজশাহীতে। সেখানেই কেটেছে তাঁর শৈশব ও কৈশোর। এন্ড্রু কিশোর প্রাথমিকভাবে সংগীতের পাঠ শুরু করেন রাজশাহীর আবদুল আজিজ বাচ্চুর কাছে। একসময় গানের নেশায় রাজধানীতে ছুটে আসেন। মুক্তিযুদ্ধের পর তিনি রবীন্দ্রসংগীত, নজরুলসংগীত, আধুনিক গান, লোকগান ও দেশাত্মবোধক গানে রেডিওর তালিকাভুক্ত শিল্পী হন।

১৯৭৭ সালে আলম খানের সুরে ‘মেইল ট্রেন’ চলচ্চিত্রে ‘অচিনপুরের রাজকুমারী নেই যে তাঁর কেউ’ গানের মধ্য দিয়ে এন্ড্রু কিশোরের চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক–যাত্রা শুরু হয়। এরপর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে। এন্ড্রু কিশোরের খুব জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’, ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে’, ‘আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি’, ‘আমার বুকের মধ্যেখানে’, ‘আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম গান’, ‘ভেঙেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা’, ‘সবাই তো ভালোবাসা চায়’, ‘পড়ে না চোখের পলক’, ‘পদ্মপাতার পানি’, ‘ওগো বিদেশিনী’, ‘তুমি মোর জীবনের ভাবনা’, ‘আমি চিরকাল প্রেমের কাঙ্গাল’ প্রভৃতি। এন্ড্রু কিশোর আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন।

fb-share-icon35
fb-share-icon20

Enjoy this blog? Please spread the word :)