1. shahinit.mail@gmail.com : dhaka24 :
  2. arifturag@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
  3. sasujan83@gmail.com : ঢাকা টোয়েন্টিফোর : ঢাকা টোয়েন্টিফোর
শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন

শেখের বেটি আসছে, দেশ এবার ঘুরে দাঁড়াবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

Reporter Name
  • প্রকাশিত | মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট:
বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রায় অর্ধযুগ পর সব প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনার দেশে ফেরার স্মৃতিচারণ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, ‘তিনি (প্রধানমন্ত্রী) যখন দেশে ফেরেন, বিমানবন্দরে দাঁড়িয়ে তিনি কেঁদেছিলেন। তখন মানুষ বলছিলো, ‘শেখের বেটি আসছে, দেশ এবার ঘুরে দাঁড়াবে’। সেটিই হয়েছে। দেশ আজ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। একে একে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন তিনি বাস্তবায়ন করে চলেছেন।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘পৃথিবীর বুকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্যই হয়তো সৃষ্টিকর্তা শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অচিরেই আমরা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়তে পারবো। জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে শেখ হাসিনা একে একে জাতির পিতার স্বপ্নগুলো বাস্তবায়ন করছেন।’

মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে উত্তরা সোনারগাঁও জনপথে ৭৪টি গাছের চারা রোপণের মাধ্যমে পরম্পরা কানন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

রাজধানীর উত্তরা সোনারগাঁ জনপথ রোডের জমজম টাওয়ার এলাকায় দুদিনের এ কর্মসূচির আয়োজন করে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার পর দেশকে এগিয়ে নেয়ার কাজ শুরু করেছিলেন। কিন্তু ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে সপরিবারে নিহত হন তিনি। আমরা মুক্তিযোদ্ধা। আমাদের শিরায় কি রক্ত প্রবাহিত হচ্ছে না। এই বাঙালিরা বঙ্গবন্ধুকে খুন করতে পারে এটা আমরা বিশ্বাস করতে পারিনি। তবে পৃথিবীর বুকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্যই হয়তো সৃষ্টিকর্তা শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন।’

তিনি বলেন, ‘আমি যখনই বিদেশে গেছি, আমাকে প্রশ্ন করা হয়েছে তোমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চাবিটা কী? কীভাবে এত দ্রুত দেশকে এগিয়ে নিয়েছেন? আমি বলেছি তার ধমনিতে বঙ্গবন্ধুর রক্ত প্রবাহিত, তিনি দেশকে ভালোবাসেন, দেশের মানুষকে ভালোবাসেন। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার এটাই তার মূল শক্তি। যেখানে বাংলাদেশের মানুষ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনাকে চার বার নির্বাচিত করেছেন।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘কোনও সিদ্ধান্তে শেখ হাসিনা ব্যর্থ হননি। সব সিদ্ধান্তে সফলতা পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের আসতে অনুমতি দিয়েছেন। তিনি বলেছিলেন, ১৭ কোটি মানুষ যদি ভাত খেতে পায়, তবে রোহিঙ্গারাও পাবে। যে কারণে আজ তিনি বিশ্বে মাদার অব হিউম্যানিটি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।’

‘করোনা ভাইরাসও আমাদের আটকাতে পারেনি’ মন্তব্য করে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘অনেকে বলার চেষ্টা করেছে এ করোনাকালে আমাদের জিডিপি কমে যাবে। কিন্তু তা কমেনি। এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শিতা, বিচক্ষণতা এবং নেতৃত্বগুণের কারণে। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে যতদিন আছেন, ততদিন বাংলাদেশ এগিয়ে যাবেই‌। আর অন্ধকারাচ্ছন্ন হবে না। তলাবিহীন ঝুড়ির দিন শেষ।’

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু সারাজীবন দেশের জন্য, মানুষের জন্য লাল সবুজের পতাকার জন্য সংগ্রাম করেছেন। তিনি একটি পতাকা দিয়ে গেছেন, স্বাধীন রাষ্ট্র দিয়ে গেছেন। আমরা যদি তাঁকে ভালোবাসি তাহলে রাস্তা, ফুটপাতের উপর যেখানে সেখানে গাড়ি পার্ক করতাম না; ফুটপাতে নির্মাণসামগ্রী রাখতাম না; অবৈধভাবে দখল করতাম না। তিনি আরো বলেন, আমার ক্ষমতা আছে, আমার টাকা আছে, আমি রাস্তার মধ্যে ফুটপাতের মধ্যে রড সিমেন্ট রেখে দিব। আমি রাজনৈতিক দলের ছবি ব্যবহার করে এ সকল অবৈধ কাজ করবো, এগুলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেমন পছন্দ করেন না, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুও পছন্দ করতেন না। তাই আসুন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে প্রতিজ্ঞা করি, বঙ্গবন্ধুর এই বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় অবৈধভাবে কেউ কিছু করবো না। আমাদের জনপ্রতিনিধিগণ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সাথে থাকলে দখলদাররা কিছুই করতে পারবে না। কারণ রাষ্ট্রের চেয়ে শক্তিশালী আর কিছু হতে পারে না।’

পরম্পরা ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি সম্পর্কে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘বাঙালি জাতি-রাষ্ট্রের জন্ম ও বিকাশের ইতিহাস বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ইতিহাস। বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে এ জাতি-রাষ্ট্রের জন্ম। তাঁর স্বপ্ন ছিল সোনার বাংলা গড়ার। শেখ হাসিনার হাতে এর উন্নয়ন ও বিকাশ। সোনার বাংলা অর্জণে আমরা অনেক কিছুতেই সফল। বঙ্গবন্ধু থেকে শেখ হাসিনা, এই পরম্পরাই বাঙ্গালি জাতির পরম্পরা। মুক্তিযুদ্ধ থেকে উন্নয়নের পরম্পরা। আমাদের নতুন প্রজন্মকে এই পরম্পরা জানতে হবে। এ লক্ষ্যে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আয়োজন পড়ি পরম্পরা, জানি নেতৃত্ব। এই পরম্পরার মাধ্যমে স্বাধীনতা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা সম্পর্কে বর্তমান প্রজন্মকে জানানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ দুইটি গ্রন্থাগারের মাধ্যমে স্বাধীনতা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবার এবং শেখ হাসিনা সম্পর্কে প্রকাশিত বই ডিএনসিসির প্রতিটি ওয়ার্ডের ঘরে-ঘরে পৌঁছে দেয়া হবে।’

পরম্পরা কানন নিয়ে মেয়র আরও বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে আজ আমরা এখানে ৭৪টি গাছের চারা লাগাচ্ছি। এই চারাগুলো লাগাচ্ছেন ডিএনসিসির ৫৪ জন ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৭৪তম জন্মদিনটিকে তাৎপর্যময় করে রাখতে এই পরম্পরা কানন। এতে একদিকে সবুজ ঢাকা গড়ার প্রত্যয় যেমন আছে, অন্যদিকে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে নিয়ে একটি অন্তর্ভূক্তিমূলক সবাই মিলে সবার ঢাকা গড়ার অঙ্গীকারও বটে।’

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম, র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন, এফবিসিসিআইর সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম প্রমুখ।

আরো সংবাদ পড়ুন
© All rights reserved &copy | 2016 dhaka24.net
Theme Customized BY WooHostBD